বাঙ্গালী ছেলের সাথে সৌদি মেয়ের কান্ড দেখুন! না দেখলে মিস!! “ভিডিও সহ “

শারীরিক সমস্যা অনিয়মিত হয়ে পড়লে কী কী সমস্যা হতে পারে জানিয়েছে ‘আমেরিকান জার্নাল অফ মেডিসিন’–এ প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে। গবেষণাপত্রে থেকে জানা যায়, অনিয়মিত শরীরিক সমস্যার কারণে হতে পারে পাঁচটি বড় সমস্যা।

চিকিৎসাবিজ্ঞানে বলে, শারীরিক সম্পর্ক হল একটি ব্যায়াম। সুস্থ থাকতে যা নিয়মিত করা উচিত। কিন্তু এমন সময় বা পরিস্থিতি আসে, যখন জীবন থেকে যৌনতা হারিয়ে যায়। অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায়, হয়তো সাময়িকভাবে, কারো বা দীর্ঘদিন ধরে সঙ্গীর সঙ্গে কোনো শারীরিক সমস্যা নেই। আসুন জেনে নেই অনিয়মিত শরীরিক সম্পর্কের ফলে হতে পারে যেসব সমস্যা।

ইরেক্টাইল ডিসফাংশন: ইরেক্টাইল ডিসফাংশন দেখা দিতে পারে। জেনে রাখুন, অন্তত ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে এমনটা হয়ে থাকে। ‘আমেরিকান জার্নাল অফ মেডিসিন’–এ প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে জানানো হয়েছে, নিয়মিত শারীরিক সম্পর্ক পুরুষাঙ্গকে সুস্থ রাখে। সপ্তাহে যারা অন্তত একদিন সঙ্গীর সঙ্গে শারীরিক সস্পর্ক করেন, তাদের ক্ষেত্রে আচমকা শারীরিক সম্পর্ক বন্ধ হয়ে গেলে ইরেক্টাইল ডিসফাংশনের সম্ভাবনা কিঞ্চিৎ কম, বা দেরিতে আসে।

শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা: শারীরিক সম্পর্ক শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। অর্থাৎ, আচমকা শারীরিক সম্পর্ক বন্ধ হয়ে গেলে প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যেতে বাধ্য।

যৌনকামনা: দীর্ঘদিন শারীরিক সম্পর্ক বন্ধ থাকলে যৌনকামনা কমে যেতে বাধ্য। দেখা গিয়েছে, আচমকা যৌনতা বন্ধ হয়ে গেলে, প্রথম দিকে যৌনতার একটা প্রবল ইচ্ছা জেগে উঠতে পারে। কিন্তু দীর্ঘদিন যৌনতা না-থাকলে, তা ক্রমশ স্তিমিত হবে। তবে পুরোটাই নির্ভর করছে, কোন অবস্থায় যৌনতায় ছেদ আসছে? প্রবল মানসিক ঝড়ঝাপটা এলে যৌনতার ইচ্ছা একেবারে গোড়া থেকেই লুপ্ত হতে পারে।

মনকে হালকা করে: শারীরিক সম্পর্ক মনকে হালকা করে। রিল্যাক্সড থাকতে সাহায্য করে। স্বাভাবিকভাবেই যৌনতা না-থাকলে সেটি হারিয়ে যাবে জীবন থেকে।

স্মৃতিশক্তি ও বুদ্ধিমত্তা: নিয়মিত শারীরিক সম্পর্ক মানুষের মস্তিষ্ক অনেক বেশি সচল থাকে। অর্থাৎ, বুদ্ধিতে শান পড়ে নিয়মিত। স্মৃতিশক্তি ও বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে যৌনতার প্রত্যক্ষ সম্পর্ক প্রমাণিত হয়েছে।

আরো পড়ুন………

প্রেমের সম্পর্কে কোন রাশি কতটা কমিটেড, জানাচ্ছে জ্যোতিষ শাস্ত্র

প্রেম বা বৈবাহিক সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা তো আর যেমন-তেমন ব্যাপার নয়! অনেকই বলবেন, পরস্পরের প্রতি বিশ্বাসই হল এর আসল চাবিকাঠি।

অবশ্য তার সঙ্গে আরও অনেক কিছুই দাবি করে একটি সম্পর্ক। যেমন, নিজেদের মধ্যে কথপোকথন, একত্রে সময় কাটানো, ধৈর্য। এর পাশাপাশি অবশ্যই এই চিন্তাধারা— সব কিছু করার জন্য আপনি প্রস্তুত কি না!

জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুয়ায়ী অবশ্য এমন কথা বলা হয়েছে যে, অনেক সময় শত চেষ্টা করলেও দু’টি মানুষের মধ্যে সম্পর্ক কখনওই ঠিক মতো গড়ে ওঠে না। তার কারণ তাদের রাশি। সব রাশিরই যে পরস্পরের সঙ্গে সম্পর্ক ভাল হয়, তা একেবারেই নয়। এমনই এক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, বারোটি রাশির মধ্যে মাত্র চারটি রাশিই রয়েছে যারা ‘লং-টার্ম রিলেশনশিপ’ বজায় রাখতে পারে।

• বৃষ— এরা খুবই স্থায়ী ও নির্ভরযোগ্য হয়।
• কর্কট— এরা নিজেদের মনের কথা বলতে পিছপা হয় না। এবং সঙ্গীকেও উদ্বুদ্ধ করে সরাসরি সব বলতে।
• কন্যা— এরা অত্যন্ত নির্ভরশীল হয়। এবং অসম্ভব ধৈর্যের ফলে মন জয় করতে পারে পার্টনারের।
• তুলা— এরা দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্কই পছন্দ করে। ফলে, সব রকম ভাবেই সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করে।

বি: দ্র : ই্উটিউব থেকে প্রকাশিত সকল ভিডিওর দায় সম্পুর্ন ই্উটিউব চ্যানেল এর । এর সাথে আমরা কোন ভাবে সংশ্লিষ্ট নয় এবং আমাদের পেইজ কোন প্রকার দায় নিবেনা। ভিডিওটির উপর কারও আপত্তি থাকলে তা অপসারন করা হবে। প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা রকম ঘটনা আপনাদের মাঝে তুলে ধরা এবং সামাজিক সচেতনতা আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ।